করোনাভাইরাস চিকিৎসায় কীভাবে কাজ করবে প্লাজমা থেরাপি?

3 months ago
বিশ্বের অনেক দেশে করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপির প্রয়োগ শুরু হয়েছে
বিশ্বের অনেক দেশে করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপির প্রয়োগ শুরু হয়েছে

করোনাভাইরাস চিকিৎসার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্লাজমা থেরাপির প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে।

শনিবার করোনাভাইরাসে সুস্থ হওয়া কয়েকজন ব্যক্তির শরীর থেকে প্লাজমা সংগ্রহ করা হচ্ছে। পরবর্তীতে এই প্লাজমা পরীক্ষানিরীক্ষার পরে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের থেরাপি দেয়া হবে।

বিশ্বের অনেক দেশে ইতোমধ্যেই করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি শুরু করা হয়েছে। কিছুদিন আগে বাংলাদেশে কিছুদিন আগে একটি বেসরকারি হাসপাতালে কনভালসেন্ট প্লাজমা থেরাপি করা হয়েছে বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

বাংলাদেশে প্লাজমা থেরাপি প্রয়োগ সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রধান ও ঢাকা মেডিকেল কলেজের হেমাটোলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মহিউদ্দিন আহমেদ খান (এম এ খান) বিবিসি বাংলাকে বলছেন, ''শুরুতে আমরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি থাকা ৪৫ জন রোগীর ওপর এই থেরাপি প্রয়োগ করবো। তারপর আমরা তাদের উন্নতির বিষয়টি পর্যালোচনা করবো। পরবর্তীতে হাসপাতালে ভর্তি থাকা অন্যান্য রোগীদের ওপর প্রয়োগের বিষয়টি আসবে।''

বাংলাদেশে আপাতত এই চিকিৎসার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল বা পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করা হচ্ছে। সফলতা পাওয়া গেলে করোনাভাইরাস রোগীদের চিকিৎসায় এটি পুরোদমে শুরু করা হবে তিনি জানান।

চিকিৎসা বিজ্ঞানে এটি বেশ পুরোনো একটি পদ্ধতি।

এই পদ্ধতিতে সাধারণত কোন ভাইরাল সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠা মানুষের রক্ত সংগ্রহ করা হয়। এরপর সেই রক্ত সঞ্চালিত করা হয় একই ধরনের ভাইরাল সংক্রমণের শিকার রোগীর দেহে।

১৯১৮ সালে স্প্যানিশ ফ্লুর মহামারি এবং ১৯৩০ এর দশকে হামের চিকিৎসায় এই পদ্ধতি কাজে লাগানো হয়েছিল। একেবারে সাম্প্রতিক সময়ে ইবোলা, সার্স এবং ‌'এইচ-ওয়ান-এন-ওয়ান' এর মতো রোগের চিকিৎসায়ও এটি ব্যবহার করা হয়েছে।

গত ডিসেম্বরে চীনের উহান থেকে করোনাভাইরাসের বিস্তার শুরু হওয়ার পর বিশ্বে এ পর্যন্ত ৪৫ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে আর মারা গেছে তিনলক্ষের বেশি মানুষ। বাংলাদেশে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ হাজারের বেশি মানুষ। মারা গেছেন ২৯৮জন।

কিন্তু এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে পুরোপুরি কার্যকর কোন ওষুধ বা টিকা এখনো আবিষ্কৃত হয়নি।

এই প্রতিবেদনটি শেয়ার করুন
আপনার মন্তব্য দিন

পাঠকের মন্তব্য

300x250.jpg
সকল সংবাদ